প্রযুক্তিরিভিউ

নতুন বাজেট স্মার্টফোন প্রিমো এফ৭ এস হ্যান্ডস অন রিভিউ

মাত্র ৫২৯৯ টাকা দামে ওয়ালটন বাজারে এনেছে তাদের আরেকটি নতুন বাজেট রেঞ্জ স্মার্টফোন প্রিমো এফ ৭ এস। এন্ট্রি লেভেল বাজেট এই অ্যান্ড্রোয়েড স্মার্টফোনটি আমাদের দেশে তৈরি ; আর এই জন্য একে ফিচার করা হচ্ছে মেড ইন বাংলাদেশ হিসেবে । যদিও বরাবর এর মত পার্টস সকল কিছু চায়না তবে এসেম্বেল করা হয়েছে বাংলাদেশ তথা আমাদের দেশে । এখন আমরা এই স্মার্টফোনটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানব, 

একনজরে স্মার্টফোনটিতে যা যা ফিচার থাকছেঃ 

  • অ্যান্ড্রোয়েড ৭.০ নগাট অপারেটিং সিস্টেম
  • ১.৩ গিগাহার্জ প্রসেসর
  • ১ জিবি র‍্যাম এবং ৮ জিবি রম
  • ৫.২ ইঞ্চি FWVGA ডিসপ্লে
  • সামনে পিছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা পাশাপাশি ফ্ল্যাশ

ওয়ালটন প্রিমো এফ ৭ এস ডিভাইসটির বক্স আনবক্স করলে আমরা যা যা পাবঃ 

  • প্রিমো প্রিমো এফ ৭ ডিভাইসটি
  • ওয়ারেন্টী কার্ড ও ইউজার ম্যানুয়াল
  • একটি চার্জার এডাপ্টার ও ইউএসবি ক্যাবল
  • একটি মিডিয়াম কোয়ালিটি হেডফোন

হার্ডওয়্যারে যা থাকছে

প্রোসেসর বা চিপসেট হিসেবে রয়েছে  মিডিয়াটেকের MT6580 চিপসেট। যার  স্পীড ১.৩ গিগাহার্জ বা ১৩০০ হার্জ  । এটি ৪ কোর সম্পন্ন, একটি কোয়াড কোর সিপিইউ। যার সাথে জিপিইউ তথা গ্রাফিক্স প্রোসেসিং ইউনিট হিসেবে রয়েছে, একই ARM অার্কিটেকচারের Mali-400. MP জিপিইউ চিপ। হার্ডওয়্যারটিকে ব্যাকআপ দিবে ১ জিবি র‍্যাম, যার ৯৬৪ জিবি এর ভেতর তুলনামূলক ৩৩০ জিবি সাধারন ব্যবহারের পরও ফাঁকা থাকে। আর ডিভাইসটির রম ৮ জিবি, যার মধ্যে ৩.২৭ জিবি ব্যবহার যোগ্য।তাই ব্যবহারকারীকে ১৬-৩২ জিবি পর্যন্ত এক্সটারনাল এসডিকার্ড ব্যবহার করার সুযোগ দেয়া হয়েছে।বেঞ্চমার্ক স্কোরঃ গীকবেঞ্চ অ্যাপে এই ডিভাইসটির সিঙ্গেল কোরে স্কোর এসেছে ৪০৮ এবং মাল্টি কোরে এসেছে ১২২৭ ।

ইউজার ইন্টারফেস 

ব্যাটারি 

স্মার্টফোনটিতে একটি ২২৫০ এমএএইচ ক্ষমতা সম্পন্ন লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি দেয়া হয়েছে । সাধারন ইউজে ব্যাটারিটি অর্ধেকদিন ব্যাক আপ দিতে পারবে ।

ডিসপ্লে এবং বডি 

ডিভাইসটির ডিজাইন  (Primo F7s)  অনেক সুন্দর এবং কম্প্যাক্ট । ডিভাইসটি ৯.৭৫ মিলিমিটার পুরু।

এর উচ্চতা ১৫০ মিলিমিটার আর প্রসস্থ ৭৩.৯  মিলিমিটার। আর ব্যাটারী সহ স্মার্টফোন তথা ডিভাইসটির ওজন ১৭২ গ্রাম। ডিসপ্লে হিসেবে ফোনটিতে রয়েছে ৮৬৪*৪৮০ রেজুলেশনের FWVGA ডিসপ্লে । FWVGA ডিসপ্লে হওয়ার কারনে ভিউইং অ্যাঙ্গেল একটু খারাপ হবে।

আর ডিসপ্লেটি সাইড দিয়ে ২.৫ ডি কার্ভড হওয়ার ফলে একটি প্রিমিয়াম লুক পাওয়া যাবে। ক্যাপাসিটিভ টাচ ডিসপ্লের সাথে ডিভাইসটি ১৬ মিলিয়ন কালার সাপোর্টেড। কোয়ালিটি অপটিমাইজেশন এর জন্য সেটিংসে রয়েছে বিল্ট-ইন ভাবে রয়েছে মিরাভিশন টেকনোলজি। ডিভাইসটি ২ ফিঙ্গার মাল্টি টাচ সাপোর্টেড ।

ক্যামেরা

ডিভাইসটির পিছনে/রিয়ার প্যানেলে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল BSI সেন্সরযুক্ত ক্যামেরা । এই ক্যামেরায় সিঙ্গেল এলইডি ফ্ল্যাস এবং অটোফোকাস এর মত সুবিধা থাকছে। রিয়ার ক্যামেরার শুটিং মোড গুলো হলঃ প্যানারোমা, এইচডিআর,ফেস বিউটি এবং নরমাল মোড।

ফ্রন্ট ক্যামেরার শুটিং মোড গুলো হলঃ এইচডিআর,ফেস বিউটি এবং নরমাল মোড। ক্যামেরার সেটিংস অপশনগুলো হল: এক্সপোসার কন্ট্রোল,হোয়াইট ব্যালেন্স, আইএসও ব্যালেন্স,ইমেজ প্রোপার্টিজ,কালার ইফেক্ট। ক্যামেরাটি ১২৮০*৭২০ পিক্সেল রেজুলেশনে ভিডিও রেকর্ড করতে পারে।ডিভাইসটির সামনে রয়েছে একটি ফ্রন্ট ফেসিং ৫ মেগাপিক্সেল BSI সেন্সরযুক্ত ক্যামেরা। সামনেও থাকছে একটি এলইডি ফ্ল্যাশ। রয়েছে বেশ কিছু ক্যামেরা সেটিংস। আর শুটিং মোড হিসেবে রয়েছে ; নরমাল মোড, ফেস বিউটি,এইচডিআর,স্ক্রীন মোড।


আশা করি এই রিভিউ টি থেকে স্মার্টফোনটি সম্পর্কে বেস শক্ত একটি ধারনা পেয়েছেন । আপনার মতামত কি তা অবশ্যই নিচে কমেন্ট এর মাধ্যমে জানাতে পারেন । আর স্মার্টফোনটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে অবশ্যই শেয়ার করুন বন্ধু দের মাঝে ।

ট্যাগ গুলিঃ

এরকম আরও আর্টিকেল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close